khabor.com, KHABOR.COM, khabor, news, bangladesh, shongbad, খবর, সংবাদ, বাংলাদেশ, বার্তা, বাংলা

ভারী তুষারপাতে কর্দমাক্ত বিপর্যস্ত নিউ ইয়র্ক সিটিসহ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের উত্তরাপূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যগুলো

0 36

তৈয়বুর রহমান টনি নিউ ইয়র্কঃ-

নিউইয়র্ক সিটিসহ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের উত্তরাপূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যগুলোতে দুই মাসেরও বেশি সময় দরে বয়ে যাচ্ছে শৈত্যপ্রবাহ। শতাধিক বছরের রেকর্ড ভঙ্গকারী এই শৈত্যপ্রবাহে রাজ্যগুলোর জনজীবন স্থবির হয়ে পড়েছে। জানুয়ারি এবং ফেব্রুয়ারি মাসের পর মার্চের প্রথম সপ্তাহটি তুষারপাতের মধ্যেই কাটলো নিউইয়র্ক, নিউজার্সি, পেনসিলভেনিয়া, কানেকটিকাট, ম্যাসেচুসেটস, রোড আইল্যান্ড, মেইন, ভার্জিনিয়া, ওয়াশিংটন ডিসি, ইলিনয় রাজ্যের অধিবাসীদের।

টানা নিউইয়র্ক সিটিসহ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের উত্তরাপূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যগুলোতে ঠান্ডা তুষারপাত ও বরফের কর্দমাক্ত বিপাকে মানুষ। সর্বস্তরে রাস্তাজুড়ে জমে আছে বরফ। দুর্ভোগে পড়েছে নগরবাসী। পাশাপাশি যানজটেও গতকাল বুধবার  মধ্যারাত থেকে নিউ ইর্য়কসহ আসে পাশের অঙ্গরাজ্যে শুরু হয় মুষলধারে তুষারপাত। তলিয়ে যায় বেশিরভাগ এলাকার বাস্তা, বাড়ী-ঘর এবং রাস্তা রাখা গাড়ি গুলো। ফলে চরম ভোগান্তিতে পড়েন চাকরিজিবী মানুষরা। শুধু সকালেই নয়  দিনভর তুষারপাতে চরম দুর্ভোগে পড়ে বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যের মানুষ। শুরু হওয়া মূষলধারে তুষারপাতের চলে রাত পর্যন্ত। তুষারপাতের উপেক্ষা করেই বাসা থেকে বেরিয়ে পড়ে স্কুল-কলেজ ও কর্মজীবী মানুষ। বাসা থেকে বের হয়েও যানবাহনের সমস্যায় পড়তে হয়। তুষারপাতের কারনে কর্দমাক্ত হয়ে উঠেছে  অধিকাংশ রাস্তাঘাট, ফুটপাথ ও নিচু খোলা জায়গা বরফের কর্দমাক্ত হয়ে উঠেছে।

new_york_2snow-Tony2015শৈত্যপ্রবাহের টানা ধকলের ফলে অনেক মানুষ অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। তীব্র শীতের কারণে লোকজন তাড়াতাড়ি বাসায় ফিরে আসছেন অথবা বাসায়ই অবস্থান করছেন। এতে ট্যাক্সিচালক, ছোট-খাটো হোটেল-রেস্তোরাঁ, রাস্তার পাশের খাবারের দোকান ইত্যাদি সেক্টরের লোকজনের আয় নিদারুণভাবে কমে গেছে। প্রবল তুষারপাতের কারণে বিমানবন্দরে বিমান ওঠানামা বন্ধ রয়েছে। প্রবল তুষারপাত এবং তাপমাত্রা কোথাও কোথাও মাইনাসের অনেক নিচে নেমে যাওয়ায় পানির আধারগুলো বরফে পরিণত হয়েছে। অনেক এলাকায় স্কুল-কলেজ বন্ধ রাখা হয়েছে। লোকজনকে ঘরের ভেতরে অবস্থান ও খাবার মজুত রাখার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। শুধু নিউইয়র্কে বরফ গলানোর জন্য এক লাখ ২৬ হাজার মেট্রিক টন লবন মওজুদ রাখাহয়েছিল বলে নগর ভবন থেকে জানানো হয়েছে।US-WEATHER-SNOW

আবহাওয়াবিদরা মনে করছেন, জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে যুক্তরাষ্ট্রের মানুষ অস্বাভাবিক এ পরিস্থিতির শিকার হয়েছেন। জাতীয় আবহাওয়া দপ্তরের আবহাওয়াবিদ পিটার উইচোরস্কি জানিয়েছেন, ১৯৩৪ সালের পর গত ফেব্রুয়ারি মাসটি নিউইয়র্ক সিটির সবচেয়ে বেশি শীতের মাস ছিল। ফেব্রুয়ারির গড় তাপমাত্রা ছিল মাইনাস ৪ দশমিক ৫ ডিগ্রি। এর আগে এ মাসে যে কোনো সময়ের গড় তাপমাত্রা ৪ ডিগ্রির বেশি ছিল।New York in the Rain

ফেব্রুয়ারির শৈত্যপ্রবাহে জবুথবু নিউইয়র্ক অঞ্চলের বাসিন্দারা মার্চে তাপমাত্রা বাড়বে বলে আশা করেছিলেন। কিন্তু মার্চের প্রথম সপ্তাহটিও তুষারপাতের মধ্যে দিয়ে পার করে হতোদ্যম হয়ে পড়েছেন তারা। বৃহস্পতিবার ভোর থেকে সারাদিনটিতে ৮ ইঞ্চিরও বেশী তুষারপাত হয়েছে। তাপমাত্রা প্রায় মাইনাস ৯ ডিগ্রিতে নেমে যাওয়ায় নিউইয়র্কের জন এফ কেনেডি, লাগোর্ডিয়া আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ফ্লাইট ওঠা-নামা বন্ধ থাকে।

উত্তর-পূর্বাঞ্চলের মধ্যে এবার সবচেয়ে বেশি তুষারপাতের ঘটনা ঘটেছে নিউইয়র্ক রাজ্যের রাজধানী আলবেনি সংলগ্ন বাফেলো, ম্যাসেচুসেটস রাজ্যের বোস্টন, রোড আইল্যান্ড রাজ্যের বিভিন্ন এলাকায়। বোস্টনের ৭টি এলাকায় দেড় শতাধিক বছরের রেকর্ড ভেঙেছে এবারের তুষারপাত। বিশ্ববিখ্যাত নায়েগ্রা জলপ্রপাতের পানি জমে বরফ হওয়ায় প্রবাহ নেই এবং আশপাশের সব এলাকায় কয়েক ফুট পর্যন্ত বরফ জমে রয়েছে।

নিউইয়র্ক রাজ্যের বাফেলো, সিরাকাস, বিংহামটন এবং ইথাকা সিটির জনজীবনও স্থবির হয়ে পড়েছে গত দুমাসের শৈত্যপ্রবাহে। এবার বাফেলোর গড় তাপমাত্রা ছিল প্রায় মাইনাস ১২ ডিগ্রি। এটি ১৯৩৪ সালের রেকর্ড মাইনাস ১১ দশমিক ৪ ডিগ্রি ছাড়িয়ে গেছে।

Print Friendly, PDF & Email

Leave A Reply