রাজধানীতে বিএনপির বিক্ষোভ খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি দাবি

0 27

জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররম থেকে জুমার নামাজ শেষে বিক্ষোভ মিছিল বের করে বিএনপি।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার পাঁচ বছরের কারাদণ্ডের প্রতিবাদে রাজধানীতে বিক্ষোভ করছেন দলটির নেতাকর্মীরা।

জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররম থেকে জুমার নামাজ শেষে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। মিছিলে হাজার হাজার নেতাকর্মী যোগ দেন। এসময় দলের নেতাকর্মীরা বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে স্লোগান দিতে থাকেন। মিছিলটি পল্টন মোড় হয়ে বিএনপির নয়াপল্টনের দলীয় কার্যালয়ের দিকে এগিয়ে যায়। তখন নয়াপল্টন থেকে একটি মিছিলও বের করা হয়।

এর আগে, বায়তুল মোকাররম থেকে আসা বিএনপির মিছিলটি দৈনিক বাংলা মোড়ে এলে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল গাড়িতে করে মিছিল ত্যাগ করেন।

বিএনপি নেতাকর্মীদের মিছিলের সামনে-পেছনে এবং মতিঝিল ও আশেপাশের এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশের উপস্থিতি দেখা গেছে। তবে বিক্ষোভকারীদের কোনো বাধা দেয়নি পুলিশ। তবে মিছিল ছত্রভঙ্গ হওয়ার পর আশেপাশের গলি থেকে তিনজনকে আটক করা হয়েছে।

এছাড়া দেশের বিভিন্ন এলাকায় শুক্রবার সকাল থেকেই বিএনপি নেতাকর্মীদের মিছিলের খবর পাওয়া গেছে। তবে কোথাও কোনো সহিংসতার খবর পাওয়া যায়নি।

ডিএমপির রমনা জোনের সহকারী কমিশনার (এসি) শিবলী নোমান জানান, বিএনপির মিছিলে কোনো বাধা দেয়া হয়নি। তবে মিছিল শেষে আশেপাশের গলি থেকে তিনজনকে আটক করা হয়েছে। তারা নাশকতার চেষ্টা করছিল কিনা তা পরে খোঁজ নিয়ে জানানো যাবে।

বিএনপি চেয়ারপারসনের পাঁচ বছরের কারাদণ্ডের প্রতিবাদে রাজধানীসহ সারা দেশে এ বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করা হচ্ছে। এছাড়া আগামীকাল শনিবার সারা দেশে প্রতিবাদ সমাবেশ করবে দলটি।

গতকাল বৃহস্পতিবার বিকালে রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ কর্মসূচি ঘোষণা দেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, খালেদা জিয়ার সঙ্গে রায়ের আগের দিন কথা হয়েছে। রায় হওয়ার পর শন্তিপূর্ণ কর্মসূচি ঘোষণা দেয়ার কথা বলেছেন তিনি।

এর আগে দুপুর ২টা ১৫ মিনিটে রাজধানীর বকশীবাজার আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে স্থাপিত ঢাকার ৫ নম্বর বিশেষ আদালতের বিচারক ড. মো. আখতারুজ্জামান জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায় ঘোষণা করেন। রায়ে খালেদা জিয়ার পাঁচ বছর কারাদণ্ড দেন তিনি। এছাড়া মামলায় অন্য আসামি তার ছেলে তারেক রহমান, সাবেক এমপি কাজী সলিমুল হক কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক সচিব ড. কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমানকে ১০ বছর করে কারাদণ্ড দেয়া হয়। একই সঙ্গে তাদের প্রত্যেককে দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৭১ টাকা করে জরিমানা করেন আদালত।

Print Friendly, PDF & Email

Leave A Reply