ঢাকা ২০১৯ সালের জন্য হবে ওআইসি’র ‘ট্যুরিজম সিটি’

0 25

ঢাকা : রাজধানীতে ওআইসি’র সদস্য রাষ্ট্রের পর্যটন মন্ত্রীদের দশম ইসলামিক সম্মেলনের (আইসিটিএম)-এর সমাপনী অধিবেশনে আজ ২০১৯ সালের জন্য ঢাকাকে ‘ট্যুরিজম সিটি’ করার জন্য বেছে নিয়েছে।সমাপনী অধিবেশনের পর রাজধানীর একটি হোটেলে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী শাহজাহান কামাল এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘আমি আনন্দের সঙ্গে ঘোষণা করছি যে, ওআইসি’র সদস্য রাষ্ট্রগুলোর প্রতিনিধিগণ আগামী বছরের জন্য ঢাকাকে ‘ট্যুরিজম সিটি’ ঘোষণা করেছে।’

বিশ্বব্যাপী ইসলামী ঐতিহ্য সংরক্ষণ এবং প্রচারের জন্য ঢাকা ঘোষণায় ২৫টি ওআইসি সদস্য রাষ্ট্রের ১৫জন পর্যটন মন্ত্রীসহ উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধিগণ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।সম্মেলনে শাহজাহান কামাল বলেন, বাংলাদেশের মুসলিম ঐতিহ্যের সংরক্ষণ ও সুরক্ষার জন্য বাংলাদেশ ১৩০ কোটি টাকার প্রকল্প প্রস্তাব করেছেন এবং ভ্রমণ ও আতিথেয়েতা খাতের দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য এখানে একটি ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠা করতে ওআইসি সহায়তা চাওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘এই সম্মেলনে ঢাকায় মুসলিম ঐতিহ্য সংরক্ষণের জন্য আমাদের প্রকল্প অনুযায়ী আর্থিক সহায়তা প্রদানের জন্য সম্মত হয়েছে এবং ওআইসি এখানে একটি মানব সম্পদ উন্নয়ন ইনস্টিটিউট স্থাপনের প্রস্তাব পর্যালোচনা করবে।’ বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন সচিব এস এম গোলাম ফারুক এবং বাংলাদেশ পর্যটন বোর্ডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ড. নাসির উদ্দিনও সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন।

ফারুক বলেন, সরকার প্রকল্পটির অধীনে ওআইসি’র আর্থিক সহায়তায় ঢাকার ৭০ থেকে ৮০টি প্রাচীন মসজিদ সংস্কার করবে।তিনি বলেন, ঢাকাকে ‘ট্যুরিজম সিটি’ হিসাবে ঘোষণা করা হলে ওআইসিভুক্ত দেশগুলোর মুসলিম পর্যটকদের নিকট বাংলাদেশের বিষয়ে বিপুল আগ্রহ সৃষ্টি হবে। তিনি বলেন, ‘পর্যটন শিল্পের উন্নয়নে ঢাকাকে উন্নীত করার জন্য আমরা একটি কৌশলগত পরিকল্পনা তৈরি করব’।

ড. নাসির বলেন, বাংলাদেশের ঢাকাকে ট্যুরিজম শহর হিসাবে বাছাই করা এটি বাংলাদেশের জন্য একটি বড় ধরনের সাফল্য। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ ওআইসির চারটি দেশের চারটি শহরকে পরাজিত করে এবং সবচেয়ে নিকটতম প্রতিযোগী আজারবাইজানের গাবালকে ২০২০ সালের জন্য শহর পর্যটন করা হয়”।

Print Friendly, PDF & Email

Leave A Reply