khabor.com, KHABOR.COM, khabor, news, bangladesh, shongbad, খবর, সংবাদ, বাংলাদেশ, বার্তা, বাংলা

জেলজীবনে নায়কের বছরপূর্তি

0 31


ভারতে বেআইনি অর্থ লগ্নি সংস্থার মামলায় গ্রেপ্তার হওয়া প্রভাবশালীদের প্রায় সকলেই জামিনে মুক্ত। ব্যতিক্রম শুধু তিনি। আজ শনিবার বন্দিজীবনের এক বছর পূর্ণ করলেন তিনি।

তিনি কলকাতার এক সময়ের দারুণ জনপ্রিয় রুপালি পর্দার নায়ক ও তৃণমূল সাংসদ তাপস পাল। খাতায়-কলমে জেলে থাকলেও আপাতত তিনি ভুবনেশ্বরের হাসপাতালে ভর্তি। পাশে শুধু স্ত্রী নন্দিনী।

ভুবনেশ্বর থেকে তাপসের আইনজীবী মিলন কানুনগো শুক্রবার জানান, কটক হাইকোর্টে জামিনের আবেদন নিয়ে দীর্ঘ শুনানি হয়েছে। শীতের ছুটির পরে, জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে রায় দেবেন বিচারপতি। ‘‘জানি না কবে ও ছাড়া পাবে। ওকে বাড়ি নিয়ে যেতে চাই। নইলে ওকে বাঁচাতে পারব না,’’ বেশ উদ্বিগ্ন শোনাল তাপস-ঘরনি নন্দিনীর স্বর।

২০১৬-র ৩০ ডিসেম্বর সল্টলেকে সিবিআইয়ের দফতরে চার ঘণ্টা জেরার পরে গ্রেফতার করা হয় ৫৮ বছরের তাপসকে। সেই রাতেই তাঁকে উড়িয়ে নিয়ে যাওয়া হয় ভুবনেশ্বরে। তখনও সঙ্গে ছিলেন নন্দিনী। এই এক বছরে খুব জরুরি কারণে দু’-এক বার স্বামীকে ছেড়ে কলকাতায় এসেছেন তিনি। সব মিলিয়ে ১০ দিন হবে।
আইনজীবী কানুনগো জানান, গত এপ্রিলে নায়কের বিরুদ্ধে চার্জশিট দেয় সিবিআই। তার আগে তাঁর জামিনের আবেদন নাকচ হয়েছে দু’বার। তার পরেই জুলাইয়ে কটক হাইকোর্টে আবেদন। কানুনগোর কথায়, ‘‘তাপসবাবু অসুস্থ। জামিনের আবেদনে বলা হয়েছে, তিনি নামী অভিনেতা। জামিন পেলে তো পালিয়ে যাবেন না। সিবিআই কোনও কারণে ডাকলে আসবেন। ওই আইনজীবীর প্রশ্ন, দোষী সাব্যস্ত হওয়ার আগেই তাঁর মক্কেলকে এক বছর ধরে জেলে থাকতে হবে কেন?

অন্য প্রভাবশালী ব্যক্তিরা জামিন পেলেও তাপসের ক্ষেত্রে অন্যথা হচ্ছে কেন? সিবিআইয়ের যুক্তি, অন্যদের কেউ অবৈধ লগ্নি সংস্থার ডিরেক্টর ছিলেন না। তাপস সাংসদ হয়েও রোজ ভ্যালির ডিরেক্টর হিসেবে নিয়মিত বেতন পেতেন। অভিযোগ, সাংসদ প্যাডে তিনি প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি লিখে রাজ্যের অন্যান্য লগ্নি সংস্থার বিরুদ্ধে অভিযোগ করলেও রোজ ভ্যালির নাম করেননি। উল্টে সাংসদ-পদ ব্যবহার করে রোজ ভ্যালিকে নানান সুযোগ-সুবিধা পাইয়ে দিয়েছেন। সিবিআইয়ের দাবি, রাজনৈতিক নেতাদের সঙ্গে রোজ ভ্যালির যোগাযোগের মাধ্যম ছিলেন তাপস। এমন এক প্রভাবশালী ব্যক্তিকে মুক্তি দিলে তিনি বাইরে বেরিয়ে সাক্ষীদের প্রভাবিত করতে পারেন। সেই কারণেই বারবার তাঁর জামিনের বিরোধিতা করা হচ্ছে।

ইত্তেফাক/আনিসুর

Print Friendly, PDF & Email

Leave A Reply