khabor.com, KHABOR.COM, khabor, news, bangladesh, shongbad, খবর, সংবাদ, বাংলাদেশ, বার্তা, বাংলা

পরীক্ষামূলকভাবে ‘প্রবাসী সেবা কেন্দ্র’ চালু করেছে এটুআই

0 45

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের একসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রোগ্রাম জেদ্দায় অবস্থিত বাংলাদেশী দূতাবাসের সহায়তায় সম্প্রতি সৌদি আরবের মদিনা, জেদ্দা ও দাম্মামে প্রবাসী বাংলাদেশীদের দোরগোড়ায় ডিজিটালসেবা পৌঁছে দিতে পরীক্ষামূলকভাবে চালু করেছে ‘প্রবাসী সেবা কেন্দ্র’।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জেদ্দায় অবস্থিত বাংলাদেশী দূতাবাসের কনস্যুলার জেনারেল জনাব মো. এফ এম বোরহান এর সভাপতিত্বে প্রবাসী সেবা কেন্দ্র সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা তুলে ধরেন এটুআইয়ের পরিচালক (ইনোভেশন) এবং বাংলাদেশ সরকারের যুগ্মসচিব মোস্তাফিজুর রহমান। অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন এটুআইয়ের ইনোভেশন বিশেষজ্ঞ ও বাংলাদেশ সরকারের উপসচিব শাহিদা সুলতানা।

২০১০ সাল থেকে ইউনিয়ন, পৌরসভা ও সিটি কর্পোরেশন ডিজিটাল সেন্টার সারাদেশে এমনকি গ্রামীণ অঞ্চলসমূহেও সরকারি-বেসরকারি দপ্তরসমূহের সেবাপ্রাপ্তিতে সাধারণ মানুষের সহায়ক হিসেবে ভূমিকা পালন করছে। এর সফলতার উপর ভিত্তি করেই ০২ এপ্রিল ২০১৭ তারিখে আন্তঃমন্ত্রণালয়ের এক সভায় প্রবাসীদের জন্য অনুরূপ ডিজিটাল সেন্টার স্থাপনের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়।

প্রবাসী ডিজিটাল সেন্টার থেকে সরকারি-বেসরকারি বিবিধ সেবা সংশ্লিষ্ট আবেদন গ্রহণ, অনলাইনে বাংলাদেশ কনস্যুলেট/দূতাবাস/হাই কমিশনে প্রেরণ এবং আবেদনের ট্র্যাকিং রাখার জন্য একটি অনলাইনভিত্তিক সিস্টেম তৈরি করা হয়েছে। এই সিস্টেম ব্যবহার করে প্রবাসী বাংলাদেশীরা দূতাবাসে না গিয়েও প্রাথমিকভাবে নির্ধারিত কিছু সেবা গ্রহণের আবেদন করতে পারবে এবং অনলাইনে উক্ত সেবা পেতে পারবেন। প্রবাসীরা ‘প্রবাসী ডিজিটাল সেন্টার’ থেকে নতুন পাসপোর্টের আবেদন, পাসপোর্ট নবায়নের আবেদন, ট্রাভেল পারমিটের আবেদন, অভিযোগ ব্যবস্থাপনা, বিবিধ প্রত্যয়ন প্রদান, লেটার অব ইনট্রুডাকশন, মৃতদেহ দেশে ফেরত পাঠানোর আবেদন, স্থানীয় কবরস্থানের জন্য অনুমতি এবং প্রবাসীদের অনলাইন রেজিস্ট্রেশন-বিষয়ক এইসব সেবাসমূহ গ্রহণ করতে পারবে।

উল্লেখ্য, একসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রোগ্রাম প্রবাসীদের ডিজিটাল সেন্টার চালু করার ব্যাপারে প্রবাসী কল্যাণ ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো এবং বাংলাদেশ ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ডের সাথে যৌথভাবে কাজ করছে। প্রবাসী বাংলাদেশী অধ্যুষিত দেশ সৌদিআরব হওয়াতে পরীক্ষামূলকভাবে ডিজিটাল সেন্টার চালু করতে প্রথম পর্যায়ে সৌদি আরবকেই নির্বাচন করা হয়েছে। সৌদি আরবে অবস্থিত বাংলাদেশ কনস্যুলেট/দূতাবাস কর্তৃক নির্বাচিত উদ্যোক্তার মাধ্যমে দূতাবাস থেকে দূরবর্তী স্থান সমূহে এই ডিজিটাল সেন্টার পরিচালিত হবে। এটুআই এর সার্বিক সহায়তায় ইডিসির কার্যক্রম পরিচালিত হবে এবং উদ্যোক্তা তত্ত্বাবধানে থাকবেন সারজাতুল আলম দিপু, আরিফ ভূইয়া ও মোহাম্মদ শাহজাহান। প্রাথমিকভাবে উক্ত ডিজিটাল সেন্টার মদিনা, জেদ্দা এবং দাম্মামে স্থাপন করা হচ্ছে যার মধ্যে ইতোমধ্যে চলতি মাসের ১৫ তারিখে মদিনাতে প্রবাসী ডিজিটাল সেন্টারের কার্যক্রম পরীক্ষামূলকভাবে চালু হয়েছে।

এটুআই প্রোগ্রামের পরিচালক (ইনোভেশন) মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, “সকল শ্রেণির মানুষের কাছে সহজে, দ্রুত, স্বচ্ছ ও হয়রানিমুক্ত সেবা পৌঁছে দেয়াই ডিজিটাল বাংলাদেশের মূল উদ্দেশ্য। যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এবং প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের ঐকান্তিক প্রচেষ্টা। এ উদ্দেশ্য বাস্তবায়নের লক্ষ্যে সরকার প্রবাসী বাংলাদেশীদের জন্য এ উদ্যোগ গ্রহণ করেন”।

এছাড়া জেদ্দা কনস্যুলেটের কনস্যুলার জেনারেল মো. এফ এম বোরহান উদ্দিন বলেন, “আপনাদের যাতায়াত, দুর্ভোগ, সময় বাঁচানো ও আপনাদের দোরগোড়ায় সেবা পৌঁছে দেয়া আমাদের এই সেবা কেন্দ্রের মূল লক্ষ্য।”

অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের মহাপরিচালক তারিকুল ইসলাম, কাউন্সিলর আলতাফ হোসেন, কনস্যুলার পাসপোর্ট কামরুজ্জামান, কনস্যুলার কাজী সালাউদ্দিন, মোস্তফা জামিল ও সোনালি ব্যাংকের প্রতিনিধি সৈয়দ মঞ্জুরুল ইসলাম। অন্যদিকে ইয়ুথ জার্নালিস্ট ফোরামের মধ্যপ্রাচ্য প্রতিনিধি কাজী নওফেল, মদিনা সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি মুসা জলিল, জেদ্দা কমিউনিটি লিডার আলতাফসহ মদিনার বিভিন্ন সামাজিক, রাজনৈতিক এবং ব্যবসায়ী নেত্রীবৃন্দ ও অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

Print Friendly, PDF & Email

Leave A Reply