khabor.com, KHABOR.COM, khabor, news, bangladesh, shongbad, খবর, সংবাদ, বাংলাদেশ, বার্তা, বাংলা

‘রোহিঙ্গা চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় বাংলাদেশের পাশে আছে ভারত’

0 33

ভারতের ক্ষমতাসীন দল ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) সাধারণ সম্পাদক রাম মাধব বলেছেন, রোহিঙ্গা চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় ভারত সব সময় বাংলাদেশের সঙ্গে আছে এবং যখন বাংলাদেশ সহযোগিতা চাইবে মোদি সরকার সব সময় সে সমস্যা মোকাবেলায় বাংলাদেশের পাশে থাকবে। ভারত বাংলাদেশের সত্যিকারের বন্ধু হিসেবে সব সময় পাশে আছে। সীমান্ত আমাদের বিভক্ত করেছে কিন্তু অভিন্ন নদী আমাদের পুনরায় মিলিত করেছে।

বিজেপির সাধারণ সম্পাদক রাম মাধব ভারতকে বাংলাদেশের ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ‘বেস্ট ফ্রেন্ড’ হিসেবেও তার বক্তৃতায় উল্লেখ করেন।

রবিবার শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালায় নদী বিষয়ক দুই দিনের উৎসবে বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ সব কথা বলেন।

তিনি বলেন, আমাদের মানবিক হতে হবে একই সঙ্গে নিজ দেশের মানুষের নিরাপত্তার কথাও ভাবতে হবে। বাংলাদেশ-ভারত দুটি দেশই উদ্বাস্তু সমস্যা সম্পর্কে জানে। আমরা দুটি দেশই এ সমস্যার মধ্য দিয়ে গিয়েছি। তাই দুই দেশকে এক সঙ্গে মিয়ানমারকে এ সমস্যা সমাধানের পথ খুঁজে নেয়ার কথা জানাতে হবে।

রাম মাধব আরো বলেন, বাংলাদেশ ও ভারত দুটি দেশই সন্ত্রাসবাদ ও জঙ্গিবাদ দ্বারা আক্রান্ত। বৈশ্বিকভাবে এ সমস্যা চলমান আর আমরা তার ভুক্তভোগী। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মৌলবাদ ও সন্ত্রাসবাদ ও সবসময় সোচ্চার। আর সেই পথচলায় ভারত সবসময় বাংলাদেশের পাশে আছে, থাকবে।

বাংলাদেশ সফরে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বক্তৃতার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, শুধু সন্ত্রসবাদ মোকাবেলাই নয় দারিদ্র আমাদের বড় সমস্যা। এমনি সব সমস্যা বাংলাদেশ ও ভারত একসঙ্গে পাশাপাশি চলবে। কারণ ভারত ও বাংলাদেশের সম্পর্ক শুধু রাজনীতিক, গণতান্ত্রিক আর অর্র্থনৈতিক সম্পর্কের ওপরে নির্ভরশীল নয় এটা সংস্কৃতির ঐতিহ্যের ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠিত।

এশিয়ান কনফ্লুয়েন্স ফ্রেন্ডস অফ বাংলাদেশের সহযোগিতায় দুই দিনের নদী উৎসব-২ এ প্রধান অতিথি ছিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এস এম মাহমুদ আলী, বিশেষ অতিথি ছিলেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, বিজেপির সাধারণ সম্পাদক ও ইন্ডিয়া ফাউন্ডেশনের পরিচালক রাম মাধব, বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতের হাইকমিশনার হর্ষবর্ধন শ্রিংলা।

আরো বক্তব্য রাখেন এশিয়ান কনফ্লুয়েন্স গভর্নিং কাউন্সিলের সদস্য রাজীব ভাটিয়া, বিমসটেকের সেক্রেটারি জেনারেল শহিদুল ইসলাম, মুক্তিযোদ্ধা শামসুল আরেফিন, সব্যসাচী দত্ত প্রমুখ।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এস এম মাহমুদ আলী বলেন, নদী নিয়ে এ আয়োজন দুই দেশের মানুষের জন্য অত্যন্ত জরুরি। অভিন্ন নদীসমূহ দুই দেশের মানুষ, প্রকৃতি ও জীববৈচিত্র রক্ষায় অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তাই নদী ও নদী তীরবর্তী মানুসের জীবনমান উন্নয়নে সমন্বিত উদ্যোগ কার্যকর ভূমিকা রাখবে।

Print Friendly, PDF & Email

Leave A Reply