khabor.com, KHABOR.COM, khabor, news, bangladesh, shongbad, খবর, সংবাদ, বাংলাদেশ, বার্তা, বাংলা

অন্তত ৯৭ এমপিকে আওয়ামী লীগের ‘নো কার্ড’

97

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের অন্তত ৯৭ জন প্রার্থীকে মনোনয়ন দেওয়া হবে না। দলের সভাপতি শেখ হাসিনা আগামী ২ অক্টোবর দেশে ফিরবেন। তিনি দেশে ফিরেই পর্যায়ক্রমে এই এমপিদের ডাকবেন। তাদের ‘নো কার্ড’ ধরিয়ে দেবেন। তাঁদের বলা হবে, দল ক্ষমতায় এলে অন্য কাজে লাগানো যাবে। তবে নির্বাচনের মাঠে গিয়ে যেন দলে বিভক্তি না করেন।

আওয়ামী লীগ আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মনোনয়ন মোটামুটি চূড়ান্ত করেছে। সারাদেশে পরিচালিত অন্তত চারটি জরিপের ভিত্তিতে মনোনয়ন চূড়ান্ত করা হয়েছে। দলের একাধিক সূত্রে জানা গেছে, মনোনয়নের দুটি তালিকা তৈরি করা হয়েছে। একটি হলো, বিএনপি যদি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে। অন্যটি বিএনপি যদি অংশ না নেয়। বিএনপি যদি পূর্ণশক্তিতে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নেয়, তাহলে ৪০ টি আসনে প্রার্থী পরিবর্তন করা হবে। আওয়ামী লীগ জাতীয় পার্টির সঙ্গে আসন সমঝোতায় যাবে। এছাড়াও ১৪ দলের আসন কমানো হবে। অন্যদিকে, বিএনপি যদি নির্বাচনে অংশ না নেয় বা ভেঙ্গে অংশ নেয়, সেক্ষেত্রে আওয়ামী লীগ জাতীয় পার্টির সঙ্গে কোনো আসন সমঝোতায় যাবে না। এক্ষেত্রে ১৪ দলের শরিকরা বেশি আসন পাবে।

আওয়ামী লীগের এই খসড়া দুই তালিকাতে অন্তত ৯৭ জন বর্তমান এমপি নেই। এদের বিরুদ্ধে এলাকায় জনপ্রিয়তা হারানো, বার্ধক্য এবং বিভিন্ন রকম অনিয়মের অভিযোগ রয়েছে। আওয়ামী লীগের নীতি নির্ধারক মহলে সিদ্ধান্ত নিয়েছে দ্রুতই এদের দলের সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেওয়া হবে। না হলে এরা নির্বাচনী মাঠে গিয়ে বিভক্তি সৃষ্টি করবে। এমনিতেই দলীয় কোন্দলে আওয়ামী লীগ জর্জরিত। দলের একাধিক নেতা বলেছেন, মনোনয়ন নিয়ে কোন্দল এড়াতেই এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। তাঁদের স্পষ্ট জানিয়ে দেওয়া হচ্ছে যে, কেন তাঁকে মনোনয়ন দেওয়া যাচ্ছে না। ওই এমপিকে আশ্বস্ত করা হবে যে, তিনি যদি দলের প্রতি অনুগত থাকেন। দলের সিদ্ধান্ত মেনে নির্বাচনের মাঠ থেকে দূরে থাকেন, তাহলে তাঁকে পরে পুরস্কৃত করা হবে। ‘নো কার্ড’ পাওয়া এমপিকে এও সতর্ক করা হবে যে, নির্বাচনের মাঠে যদি সে দলাদলি এবং গ্রুপিং করে তবে তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ইতিমধ্যে দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ‘নো কার্ড’ দেখানো শুরু করেছিলেন। কিন্তু এতে উল্টোফল হয়েছে। যাদের ‘নো কার্ড’ দেখানো হয়েছে, তারা উল্টো বলা শুরু করেছেন শেখ হাসিনা আমাকে কাজ করতে বলেছেন। বিষয়টি সাধারণ সম্পাদক দলের সভাপতিকে বলেছেন। তারপরই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। আগামী মাস থেকেই মনোনয়ন থেকে বাদ পড়াদের ‘নো কার্ড’ দেওয়া শুরু হবে। ইতিমধ্যে আওয়ামী লীগের অন্তত পাঁচজন এমপিকে আনুষ্ঠানিক ভাবে ‘নো কার্ড’ দেখিয়ে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু এরা যা কিছু শোনার দলের সভাপতির কাছ থেকেই শুনতে চান।

আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা, এই উদ্যোগকে অত্যন্ত ভালো একটি উদ্যোগ হিসেবে মনে করেছেন। এর ফলে দলের কোন্দল কমবে। সাম্ভাব্য প্রার্থীও নিবিঘ্নে কাজ করতে পারবেন।

Print Friendly, PDF & Email

Comments are closed.