khabor.com, KHABOR.COM, khabor, news, bangladesh, shongbad, খবর, সংবাদ, বাংলাদেশ, বার্তা, বাংলা

ডেনমার্ক আওয়ামী লীগের গ্রেনেড হামলা দিবস পালন

0 607

কুপেনহেগেন, ডেনমার্ক:২০০৪ সালের ২১ আগস্ট, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সন্ত্রাস, জঙ্গীবাদ ও দুর্নীতি বিরোধী শান্তিপূর্ণ সমাবেশে হাওয়া ভবনের প্রত্যক্ষ নির্দেশে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া এবং তার পুত্র তারেক রহমান বাংলাদেশ থেকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে চিরতওর ভুলন্ঠিত করতে দেশরত্ম জননেত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দেশে গ্রেনেড হামলা ও গুলি চালিয়েছিল। এই গ্রেনেড হামলায় আওয়ামী লীগের ২৪জন নেতাকর্মী নিহত হয় ও ৫০০ জন আহত হয়। এখনও অনেকে গ্রেনেডের স্পিন্টার শরীরে নিয়ে মানবতার জীবন যাপন করছে।

এই দিনটিকে বিশেষভাবে স্মরণ করে শহীদদের স্মরণে ডেনমার্ক আওয়ামী লীগের উদ্যোগে ২৭ আগস্ট সন্ধ্যায় কুপেনহেগেনের হোমলেটগেইট মিলনায়তনে এক আলোচনা সভা ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

এতে উপস্থিত ছিলেন ডেনমার্ক আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামন্ডলীর বাবু সুভাষ ঘোষ, মাহবুবুল হক, রাফায়েত মিন্টু, হাসনাত রুবেল, জাহিদুল ইসলাম কামরুল।অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ডেনমার্ক আওয়ামীলীগের সভাপতি মোস্তফা মজুমদার বাচ্চু। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমানের উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করা হয়। পরে শহীদদের স্মরণে ১ মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন ডেনমার্ক আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা যথাক্রমে বাবু সুভাষ ঘোষ, মাহবুবুল হক, রাফায়েত মিঠু, হাসনাত রুবেল, জাহিদুল ইসলাম কামরুল।

সংগঠনের সভাপতি মোস্তফা মজুমদার বাচ্চু, সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান, সহ সভাপতি জাহিদ বাবু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নাঈম বাবু, নূরুল ইসলাম টিটু, সফিউল ইসলাম টিটু, সাংগঠনিক সম্পাদক সরদার সাইদুর রহমান, অর্থ সম্পাদক মোহাম্মদ রাসেল। এছাড়াও ডেনমার্ক স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি জনাব নাজিম উদ্দিন ও সাধারণ সম্পাদক রনি আলম। ২১ আগস্ট শহীদদের স্মরণে দোয়া পরিচালনা করেন কোপেন হোসেন বায়তুল আকরাম মসজিদেও হুজুর জনাব আজিজুল হক। অনুষ্ঠানে ডেনমার্ক ছাত্রলীগ, আওয়ামী যুবলীগ, ডেনমার্ক আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবকলীগের নেতাকর্মীরাও উপস্থিত ছিলেন।

নেতাবৃন্দ বলেন, এ নাগাদ ২০ বার জননেত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে কিন্তু রাখে আল্লাহ মারে কে। ১৯৭১ সালের  মুক্তিযুদ্ধে পরাজিত শক্তির আন্তর্জাতিক ও স্থানীয় সিন্ডিকেট একত্রে জননেত্রী শেখ হাসিনাকে বারবার হত্যার অপচেষ্টা করে চলেছে। তারা মূলত ১৯৭১ এ পরাজয়ের প্রতিশোধ নিতে চায়। তাই বাংলাদেশকে স্থবির করে দিতে এরা শেখ হাসিনাকে শেষ করে দিতে চায়। তাই মুক্তিযুদ্ধে পরাজিত শক্তিদের ব্যপারে সজাগ থাকতে হবে এবং আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদেও মধ্যে ঐক্য গড়ে তুলতে হবে। কারণ ঐক্যবদ্ধ আওয়ামী লীগ কখনোও হারেনা হারতে পারেনা। শেষে জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে ও আগামী জাতীয় নির্বাচনে শেখ হাসিনাকে আবার রাষ্ট্রক্ষমতায় নিয়ে আসার জন্য ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার প্রত্যয় ব্যক্ত করে শোক সভার সমাপ্তি হয়।

Print Friendly, PDF & Email

Leave A Reply