Share

সফিউল সাফিঃ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় এর মাননীয় প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি কে গণসম্বর্ধনা দিয়েছে ডেনমার্ক আওয়ামী লীগ। ডেনমার্ক আওয়ামী লীগের উদ্যোগে সংগঠনের সভাপতি মোস্তফা মজুমদার বাচ্চুর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান সঞ্চারনায় গণসম্বর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অথিতি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মাননীয় প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি। বিশেষ অথিতি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ডেনমার্ক আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা বাবু সুভাষ ঘোষ, মাহবুবুল হক, রাফায়েত হোসেন মিঠু, হাসনাত রুবেল, ফ্রান্স আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আতিক্কুজ্জামান ও মাননীয় প্রতিমন্ত্রীর ব্যক্তিগত ও প্রেস সচিব । অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেনঃ ডেনমার্ক আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতিঃ খোকন মজুমদার, জাহিদ বাবু, নাসির সরকার, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকঃ নাইম উদ্দিন, নুরুল ইসলাম টিটু, সফিউল সাফি এবং সাংগঠনিক সম্পাদকঃ সরদার সাইদুর রহমান,অর্থ সম্পাদক মোসাদ্দেকুর রহমান রাসেল।

অনুষ্ঠান শুরুতে হাজার বছরের শ্রেষ্ট বাঙ্গালী জাতির পিতা ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমান, জাতীয় চারনেতা, ভাষা শহীদ , ১৯৭৫এর ১৫ই আগস্ট শহীদ ও মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের গভীর শ্রদ্ধায় স্মরণ করে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করে প্রাণপ্রিয় এবং জননেত্রী শেখ হাসিনার দীর্ঘায়ু কামনা করে দোয়া ও মোনাজাত করা হয়। মহিলা ও শিশুরা ফুলেল শুভেচ্ছা দিয়ে মাননীয় প্রতিমন্ত্রীকে বরন করে নেন এবং মাননীয় প্রতিমন্ত্রী মহোদয় উপস্থিত নারীদের মঞ্চে ডেকে বসান।

মাননীয় প্রতিমন্ত্রী মহোদয় তার বক্তব্যে বাংলাদেশ সরকারর উন্নয়েন বিভিন্ন দিক টুলে ধরেন ও তিনি বাংলাদেশে মহিলা ও শিশুদের জন্য গৃহীত উদ্যোগের কথা জানান। তিনি বলেন উন্নত বিশহের সাঁটে তাল মিলেয়ে বাংলাদেশদের নারীরা আর এগিয়ে যাচ্ছে, দেশের অর্ধেক নারী সমাজকে দারিদ্র্যসীমায় রেখে দেশের উন্নয়ন সম্ভব নয়। এ কারণেই সরকার দারিদ্র্য বিমোচনে নারীদের সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিয়েছে, শেখ হাসিনার সরকার ছাড়া দেশের অর্ধেক জনগোষ্ঠী নারী সমাজের ভাগ্য উন্নয়নের কথা ভাবেনা। তিনি বাংলাদেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতি এবং গণতন্ত্র বিকাশে বঙ্গবন্ধুর তনয়া মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা’র ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস নিয়ে আলোচনা করেন।

জননেত্রী শেখ হাসিনার গৃহীত রূপকল্প ২০৪১ সালের প্রতি আস্থা রেখে ও ডেনমার্ক আওয়ামী লীগের সাথে একত্রে কাজ করার অঙ্গীকার করে মোহাম্মাদ ইসমাইল মাননীয় প্রতিমন্ত্রী মহোদয়ের নিকট ফুল দিয়ে ডেনমার্ক আওয়ামী লীগের যোগদান করেন।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেনঃগোলাম কিবরিয়া শামিম, মোহাম্মদ সেলিম , আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদকঃ রাসেল, অভিবাসন বিষয়ক সম্পাদকঃ আরিফুল হক আরিফ,কৃষি বিষয়ক সম্পাদকঃ সাজ্জাদ হোসেন,তথ্য ও গবেষনা বিষয়ক সম্পাদকঃ সম্রাট ,ত্রাণ ও সমাজ কল্যান বিষয়ক সম্পাদকঃ ইউসুফ আহম্মেদ,সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদকঃ কোহিনুর আক্তার মুকুল, ধর্ম-বিষয়ক সম্পাদকঃ কচি মিয়া,প্রচার ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদকঃ নীরু সুমন,বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদকঃ কামরুল ইসলাম, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদকঃ রেজাউল হক রেজা,মহিলা বিষয়ক সম্পাদকঃ তানিয়া সুলতানা চাপা,যুব ও ক্রিয়া বিষয়ক সম্পাদকঃ মোহাম্মদ সেলিম,শিক্ষা ও মানব বিষয়ক সম্পাদকঃ নাজিম উদ্দিন খান,শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদকঃ মোতালেব হোসেন, শ্রম বিষয়ক সম্পাদকঃ গোলাম রাব্বি,সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদকঃ লায়লা আক্তার সীমা,স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদকঃ সামছু উদ্দিন,দপ্তর সম্পাদকঃ দেবাসীষ দাস,প্রচার ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদকঃ নয়ন,কার্যকরী কমিটির সদস্য , মোসাদ্দিকুর রহমান রাসেল, রনি, ওমর,আমির জীবন , ফজলে রাব্বি , সামসুল আলম, সোহেল আহমেদ, সাফায়েত অন্তর, শামীম খান ,তাসবির হোসেন,মাঞ্জুর আহমেদ মামুন, মনসর আহমেদ, মোহাম্মাদ ইউসুফ, মাসুম বিল্লাহ, শাওন রহমান , সাইদুর রহমান, নাজমুল ইসলাম, আরিফুল ইসলাম, হাসান শাহীন, তুহীন, আরিফুল হক আরিফ, আজাদুর রহমান, রাজ্জাক, নাজমুল হোসেন, দোলন, সহ সকল নেতৃবৃন্দ।
উপস্থিত নেতৃবৃন্দদের সম্মানে আয়োজিত নৈশভোজের মাধ্যমে অনুষ্ঠান সমাপ্তি করা হয়।

Print Friendly, PDF & Email
Share
 
 

2 Comments

  1. এম এ লিঙ্কন মোল্লা says:

    গত ১৯ মে ২০১৭, বাংলাদেশ সকারের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী ডেনমার্ক আসলে সম্মেলনের মাধ্যমে নব নির্বাচিত কমিটির পক্ষ থেকে, তার নিকট অনুরোধ জানানো হয় যে, তিনি ব্যাক্তিগতভাবে যেখানে খুশী যাবেন কিন্তু সম্মেলনের মাধ্যমে নব নির্বাচিত ডেনমার্ক আওয়ামী লীগের কমিটির বাহিরে অন্য কারো ব্যানারে না যাওয়ার জোর অনুরোধ জানাই এবং ওই সভায় কেউ সভাপতিত্ব করতে পারবে না শুধুমাত্র তিনি বক্তব্য রাখবেন ।
    মাননীয় মন্ত্রী মহদয় আমাদের দেয়া কথা রেখেছেন । তিনি ওখানে যাওয়ার আগে ভুয়া কমিটির লোকজনকে বলেছেন,আগে ব্যানার নামাতে হবে । ওরা তাই করেছে । পরে বলেছেন, আমি যেহেতু মহিলা ও শিশু মন্ত্রনালয়ের দায়িত্বে আছি তাই আজকের এই সভাকে আমি মহিলা সমাবেশে ঘোষণা করছি একই সাথে তিনি তিনজন ভদ্র মহিলাকে মঞ্চে তার পাশে বসিয়ে সভা শুরু করেন এবং দলের নব্য ,বিএনি জামাতের ব্যাপারে খোজ খবর রাখার নির্দেশ দেন । একমাত্র বক্তা হিসাবে ৮ মিনিটি এর মধ্যে তার বক্তব্য শেষ করে হোটেলে চলে আসেন । অথচ এতোসব মিথ্যা গল্পও সাজিয়ে নিউজ করা লজ্জার ব্যাপার । পরের দিন মন্ত্রী মহোদয় দূতাবাস আয়োজিত বৈশাখী উৎসবে আসলে তার দেয়া কথা রাখার জন্য আমি তাকে ধন্যবাদ দেই এবং তাকে বলি, আপা আমাকে যদি এই শর্ত দিতেন, তাহলে বলতাম আপা আমাদের অনুষ্ঠানে আপনার আশার দরকার নেই কারন আওয়ামীলীগ আমার পরিচয় , তাই আপনি যদি আমাকে ব্যানার খুলতে বলেন সেটা পারবো না এবার বুঝিন তারা কেমন আওয়ামী লীগ করেন, তাদের দলের প্রয়োজন নেই তাদের দরকার মন্ত্রির ছবি । ইতিমধ্যে আমি এর নিউজের লিঙ্ক মন্ত্রী মহোদয়ের এপিএস এর নিকট পাঠিয়েছি ।

  2. গত ১৯শে মে কোপেনহেগেনের হোটেল বেলা স্কাইতে মাননীয় প্রতিমন্ত্রী বেগম মেহের আফরোজ চুমকি আগমনে ডেনমার্ক আওয়ামী লীগ থেকে ৫ (পাঁচ) বছরের জন্য দল থেকে সাসপেন্ড লিংকন মোল্লা ডেনমার্ক আওয়ামী লীগের ব্যানারে কোন অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ না করার জন্য মাননীয় প্রতিমন্ত্রী বেগম মেহের আফরোজ চুমকি কে প্রস্তাব দিলে উপস্থিত ডেনমার্ক আওয়ামী লীগ, ডেনমার্ক যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দরা প্রতিবাদ করেন। নেতৃবৃন্দরা মাননীয় প্রতিমন্ত্রীকে অবহিত করেন বিশিষ্ট সাংবাদিক আবদুল গাফফার চৌধুরীকে নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করায় ডেনমার্ক আওয়ামী লীগ থেকে লিংকন মোল্লাকে পাঁচ বছরের জন্য সাসপেন্ড ও সর্ব ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতৃবৃন্দদের কটূক্তি করায় সাব্বির মুন্সি দল থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়। এ সত্য সামনে চলে আসায় মাননীয় প্রতিমন্ত্রী সামনে সাব্বির মুন্সি ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে উপস্থিত নেতৃবৃন্দদের গালাগালি ও হৈচৈ শুরু করেন । ডেনমার্ক যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দরা সাব্বির মুন্সির দিকে তেড়ে গেলে নিরাপত্তার কর্মী ও ডেনমার্ক আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতৃবৃন্দের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হয় পরে হোটেল নিরাপত্তার কর্মীরা লিংকন মোল্লা ও সাব্বির মুন্সিকে হোটেল থেকে বাহির করে দেওয়া হয়।

Leave a Comment

 




 

*

 
 
609Total Views
Share
Share

Hit Counter provided by shuttle service from lax